পঞ্চগড়ে সোনালি আঁশে ফিরবে সুদিন

প্রতিবেদক: তোতা মিয়া বিভাগীয় ব্যুরো প্রধান রংপুর,

 

 

পঞ্চগড়ে গতবার সোনালি আঁশে সুদিন ফিরে পেয়েছিল চাষিরা।সঠিক দামের পাশাপাশি বাজারে পাটের চাহিদাও বেড়েছিল অনেক বেশি।আর সে লক্ষে এবার পঞ্চগড়ে গত বছরের তুলনায় রেকর্ড পরিমাণ জমিতে পাটবীজ রপন করা হয়েছে। বিগত বছরগুলোতে পাটের দাম কম থাকায় স্থানীয় চাষিরা ব্যাপক লোকসানের মুখে পড়েছিলেন ।

 

 

আর গত দু বছর থেকে পটের চাহিদা ও দাও ভালো পাওয়ায় এবার পঞ্চগড়ে পাট চাষে ঝুকছে অনেক চাষিরা।অনুকুল আবহাওয়া বিরাজ করলে এবার পাটের রকর্ড পরিমাণ ফলন আশা করছেন।উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর, জানা গেছে, চলতি বছের উপজেলার ৫ টি, ইউনিয়নে প্রায় ২ হাজার ৩২০ হেক্টর জমিতে পাট বীজ রপন করা হয়েছে।

 

 

 

যা গত বছরের তুলনায় ১ শ হেক্টর জমির বেশি।আর উৎপদন লক্ষমাএা নির্ধারণ করা হয়েছে। স্থানীয় কৃষকরা এবার ও-৯৮৯৭ (ফাল্গুনী তোসা), জিআরও ৫২৪ জাতের পাটবীজ বেশি রপন করেছে। তাছাড়া ভারত থেকে আমদানিকৃত চাকা মার্কা জাতের পাটবীজও অনেকেই রপন করেছে।

 

 

 

 

উপজেলার কালিয়াগঞ্জ এলাকর কৃষক আব্দুল তালেব বলেন, কৃষি উপকরণের পাশাপশি দিনমুজুরের খরচ অনেক বেড়ে গেছে। তার মধ্যে বীজ রপন থেকে পাট কেটে প্রক্রিয়াজতকরণ পর্যন্ত ১ বিঘা জমিতে প্রায় ৮-১০ হাজার টাকার মত খরচ হয়।গত কয়েক বছর যাবত বাজার মন্দা থাকায় পাট রপন করে এলাকার অনেক চাষিদের লোকসান গুনতে হয়েছে।

 

 

 

 

তবে গত দু বছর থেকে বাজারে পাটের চাহিদার পাশাপাশি দামও ভালো পওয়া যাচ্ছে। যার কারণে এবার অনেকেই পাট চাষে এগিয়ে আসছেন। মাগুড়া এলাকার পাটচাষি আবুল হোসেন বলেন, আমাদের এলাকায় বর্তমানে অধিককাংশ জমিতে পাট রপন করা হয়েছে। দুই একজন চাষি আছেন যারা এবার পাট রপন করতে পরেনি। তবে আগামীতে এরাও পাট চাষ করবেন। চাষিরা এবার আশা করছেন আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে লাভবান হবেন, বারবে পাট চাষ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *