বিমানকর্মীদের দুর্ব্যবহার: ‘প্রশিক্ষণ নয়, অ্যাকশন প্রয়োজন’

ছবিতে ইনসেটে বানসুরি এম ইউসুফ
পীরগঞ্জ নিউজ এক্সপ্রেস ডেক্স : বিমানবন্দরে সাধারণ যাত্রীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহারের ঘটনা নতুন নয়। এবার বিমানকর্মীদের ভালো ব্যবহার শেখানোর বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়ার উদ্যোগের কথা জানিয়েছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)। এ নিয়ে বুধবার (১০ আগস্ট) হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এক গণশুনানিতে যাত্রীদের সঙ্গে খারাপ আচরণের ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশও করেছেন বেবিচক চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মোহাম্মদ মফিদুর রহমান।এর পরই বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পরিচালক বানসুরি এম ইউসুফ। বুধবার দিনগত রাতে দেওয়া এক পোস্টে বিমানের যাত্রীদের সঙ্গে কর্মীদের খারাপ আচরণের নানা দিক তুলে ধরেছেন বিমানবন্দরের সাবেক এই ম্যাজিস্ট্রেট।
বানসুরি এম ইউসুফের পোস্টটি নিচে হুবহু তুলে ধরা হলো- খবরে দেখলাম বিমানবন্দর কর্মীদেরকে ভালো ব্যবহারের প্রশিক্ষণ দেও্রয়া হবে, যাতে তারা যাত্রীদের সাথে ভালো ব্যবহার করে। তার মানে বহু যুগ পরে হলেও এই প্রথম কর্তৃপক্ষ স্বীকার করে নিলেন যে বিমানবন্দরে যাত্রীদের সাথে খারাপ ব্যবহার করা হয়। কর্তৃপক্ষের এ ধরনের উপলব্ধিকে সাধুবাদ জানাই।তবে প্রশিক্ষণের পাশাপাশি কঠোর আইন প্রয়োগের ব্যবস্থা না থাকলে এই বয়সে প্রশিক্ষণ কোনো কাজে আসবে না। আর সমস্যাটা সেখানে, কে কার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে? বিমানবন্দরে পঁচিশ থেকে ত্রিশটা সংস্থা এবং প্রতিষ্ঠান কাজ করে। বিমানবন্দরের কর্তৃত্ব বেবিচকের হাতে থাকলেও কর্মরত এসব প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কর্তৃত্ব বেবিচকের হাতে নেই। সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের বিরুদ্ধে স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের কর্তাব্যক্তিরা ব্যবস্থা নেওয়ার ক্ষমতা রাখেন, যারা মূলত: বিমানবন্দরে সরেজমিন অনুপস্থিত।এসব কর্মীরা বেবিচকের কর্তৃত্ব মানাতো দূরের কথা, কোনো প্রতিষ্ঠানের ক্ষমতা কতটুকু তা জাহিরেই লিপ্ত থাকে। আর সব ক্ষমতা প্রদর্শন করে তারা যাত্রীদের ওপর। মোটামুটি একটা প্রতিযোগিতা চলে এখানে, খারাপ আচরণের প্রতিযোগিতা! কার ক্ষমতা বেশি, কে বেশি খারাপ ব্যবহার করে পার পেয়ে যেতে পারছেন, বাকিদের দেখানোটাই উদ্দেশ্য অনেকটা!বেবিচকের অ্যাকশন নেওয়ার কোনো কর্তৃত্ব নেই বলেই তারা এখন অগত্যা প্রশিক্ষণের উদ্যোগ নিচ্ছে। আরে ভাই, অফিসাররা ভালো ব্যবহার জানে না, এটাও বিশ্বাস করতে হবে?সম্প্রতি নাকি এক কাস্টমস কর্মী যাত্রীকে চড় মেরেছেন।
খবরটা পড়তেই মনে হলো চড়টা আমার গালেই এসে লেগেছে! বিমানবন্দরের সাবেক ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে আমি লজ্জিত।প্রশিক্ষণ নয়, অ্যাকশন প্রয়োজন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *