ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জে নদী থেকে বালু উত্তোলন, ছবি তুলতে গিয়ে সাংবাদিক লাঞ্ছিত

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে অবৈধ বালু উত্তোলনের ছবি তুলতে গেলে হবি নামে এক ব্যক্তির কাছে সাংবাদিক লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে।(১৭ ডিসেম্বর) গত বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার ৮ নং দৌলতপুর ইউনিয়নের টাঙ্গন নদীর কদমতলী ঘাটে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর প্রশাসন দুটি ট্রাক্টর আটক করেছে তবে ঘটনার সাথে জড়িত ব্যক্তি হবি কে আটক করেনি।

 

স্থানীয় সাংবাদিক জাকির হোসেন ,আব্দুল আলিম ও মামুনুর রশিদ মিন্টু সহ গণমাধ্যমকর্মীরা জানান, ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নদী থেকে বালু উত্তোলনের ঘোষণা দেয়া হলেও অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ হয়নি। প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে বালু উত্তোলনকারীরা পীরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন ঘাট থেকে প্রতিনিয়ত বালু উত্তোলন করছে।

 

অবৈধ বালু উত্তোলনের খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে পীরগঞ্জ উপজেলার ৭ থেকে ৮ জন গণমাধ্যমকর্মীরা দৌলতপুর ইউনিয়নের কদমতলী ঘাটে গিয়ে ক্যামরায় ছবি ধারণ করে। এ সময় বালু সিন্ডিকেট দলের উপজেলার ৮ নং দৌলতপুর ইউনিয়নের সাগুনী গ্রামের রমজান আলীর ছেলে হবি লাঠি নিয়ে মারমুখি হয়ে তেড়ে আসে। সাংবাদিকদের ধাক্কা দিয়ে ছবি ও ভিডিও ধারণে বাধা প্রদান করে ও মারমুখী আচরণ করে।ঘটনার পরে গণমাধ্যমকর্মীরা বিষয়টি প্রশাসনকে অবগত করলে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। আটক করা হয় দুটি ট্রাক্টর। এ সময় পীরগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি তরিকুল ইসলামের সামনে সাংবাদিক লাঞ্ছিতকারী হবি দাঁড়িয়ে থাকলেও তাকে আটক না করে উল্টো সাংবাদিকদের উপর চড়াও হন বলে অভিযোগ করেন সাংবাদিকরা।

 

এতে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন সাংবাদিকরা। পীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার রেজাউল করিম বলেন, অবৈধভাবে নদী থেকে বালু উত্তোলনকারীদের শুধু জরিমানা নয় জেল দেওয়া হবে। কাউকে ছাড় না দেয়ার কথাও জানান তিনি।

প্রশাসনের কড়া নির্দেশনা সত্ত্বেও উপজেলার কদমতলী, নাক্কাটি, বনুয়াপাড়া, বাজারদিহা, মাসালডাঙ্গী, থুমুনিয়া শালবনসহ একাধিক নদীর ঘাটে অবাধে বালু উত্তোলন করছে বালু সিন্ডিকেট চক্র। এ বিষয়ে মুঠোফোনে জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান সেলিম জানান, অবৈধভাবে নদী থেকে যারা বালু তুলছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। বালু উত্তোলনের বিষয়ে প্রশাসন কঠোর অবস্থানে রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *